ঢাকা, মঙ্গলবার, ৫ মার্চ ২০২৪, ২১ ফাল্গুন ১৪৩০, ২৩ শাবান ১৪৪৫

এক সেকেন্ডের জন্য পৃথিবীর ঘূর্ণন বন্ধ হলে কী হতে পারে

প্রকাশনার সময়: ০৭ ফেব্রুয়ারি ২০২৪, ১০:৩৭

এক সেকেন্ডের নাই ভরসা। খুব চলতি এই সংলাপ জীবনের প্রতিপদে সত্য। মাত্র এক সেকেন্ডের জন্য পৃথিবীর ঘূর্ণন বন্ধ হয়ে গেলে কী হবে, তা কখনো চিন্তা করেছেন? পৃথিবীর ঘূর্ণন বন্ধ হলে এক সেকেন্ডের মধ্যেই মানবজাতি হারিয়ে যেতে পারে।

সূর্যকে কেন্দ্র করে পৃথিবী তার অক্ষে ঘুরছে। প্রায় ২৪ ঘণ্টায় একটি ঘূর্ণন সম্পন্ন করে। আর সূর্যের চারপাশে একটি পূর্ণ বৃত্ত সম্পূর্ণ করতে প্রায় ৩৬৫ দিন লাগে। পৃথিবীর ঘূর্ণন এক সেকেন্ডের জন্য বন্ধ হলে দেখা দেবে নানান ধরনের বিপর্যয়কর পরিস্থিতি।

পৃথিবী নিজ অক্ষে ২৩ ঘণ্টা ৫৬ মিনিটে একটি পূর্ণ ঘূর্ণন সম্পন্ন করে। এই ঘূর্ণন আমাদের পৃথিবীর প্রাণ ও পরিবেশের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, পৃথিবীর ঘূর্ণন দিন-রাতের যে চক্র রয়েছে, তার ওপরে প্রভাব ফেলে থাকে।

আবহাওয়ার ধরন থেকে শুরু করে মহাসাগরের আচরণ পর্যন্ত পৃথিবীর ঘূর্ণনের ওপরে নির্ভরশীল। নিরক্ষরেখা বরাবর পৃথিবীর পৃষ্ঠ প্রতি ঘণ্টায় প্রায় ১ হাজার ৬০০ কিলোমিটার বেগে ঘুরছে। এই গতি হঠাৎ থেমে গেলে নেমে আসবে বিপর্যয়। এখন যা কিছু ভূপৃষ্ঠে স্থির রয়েছে, তা ধ্বংসাত্মক গতিতে পূর্ব দিকে উৎক্ষিপ্ত হবে।

বায়ুমণ্ডল স্বাভাবিকভাবেই গতিশীল। ঘূর্ণন বন্ধ হয়ে গেলে হাজার হাজার হারিকেনের শক্তিতে বায়ুমণ্ডল পৃথিবীর ওপর ভেঙে পড়বে। গাছপালা উপড়ে যাবে, নদীর গতিপথ বদলে যাবে। আকস্মিকভাবে পৃথিবীর ঘূর্ণি থামলে ভূতাত্ত্বিক বিপর্যয়ও দেখা যাবে।

গতিবেগের পরিবর্তনের ফলে বড় ধরনের ভূমিকম্প ও সুনামি হতে পারে। গ্রহের ঘূর্ণনের কারণে মহাসাগরগুলোর অবস্থানগত পরিবর্তনও দেখা যাবে। ফলে সমুদ্রের বিশাল ঢেউ উপকূলরেখাকে প্লাবিত করবে।

পৃথিবীর ঘূর্ণন বন্ধ হলে কি হবে, তা নিয়ে নিজেদের নানা ভাবনা প্রকাশ করেছেন বিজ্ঞানীরা। জ্যোতির্পদার্থবিজ্ঞানী নীল ডিগ্র্যাস টাইসন বলেন, ঘূর্ণন আকস্মিকভাবে থেমে গেলে পৃথিবীর সবাই মারা যাবেন। মানুষ জানালা দিয়ে উড়ে যাবে।

সেটা হবে পৃথিবীর জন্য খারাপ একটি দিন। পৃথিবীর ঘূর্ণন মহাকর্ষীয় ক্ষেত্রের সঙ্গে আবদ্ধ হয়ে চাঁদের কক্ষপথকে প্রভাবিত করে। হঠাৎ থেমে গেলে চাঁদ ও পৃথিবীর সূক্ষ্ম ভারসাম্য নষ্ট হয়ে যাবে। এমনকি চাঁদের চলার পথেও পরিবর্তন আসবে।

আর তখন জোয়ার-ভাটা কীভাবে হবে, তা বলা কঠিন। যদিও চাঁদের কারণে পৃথিবীর ঘূর্ণন ধীরে ধীরে কমে যাচ্ছে। এই প্রক্রিয়া অবশ্য খুবই ধীর। চাঁদের টানে পৃথিবীর মাত্র এক সেকেন্ড ধীর গতি হতে প্রায় ৫০ হাজার বছর সময় লাগে। আকস্মিকভাবে এক সেকেন্ডের জন্য ঘূর্ণন বন্ধ হলে প্রাকৃতিক প্রতিবেশে সংকট দেখা যাবে।

নয়া শতাব্দী/আরজে

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এ সম্পর্কিত আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

আমার এলাকার সংবাদ

x
Naya Shatabdi