রবিবার, ১৪ এপ্রিল ২০২৪, ১ বৈশাখ ১৪৩১

শ্রীপুরে অবহেলায় প্রসূতির মৃত্যু, হাসপাতালের কার্যক্রম বন্ধ

প্রকাশনার সময়: ০২ এপ্রিল ২০২৪, ১৪:১৯

গাজীপুরে শ্রীপুরে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও চিকিৎসকের অবহেলায় প্রসূতির মৃত্যুর ঘটনায় একটি বেসরকারি হাসপাতালের কার্যক্রম বন্ধ করে দিয়েছে গাজীপুর জেলা সিভিল সার্জন।

মঙ্গলবার (২ এপ্রিল) সকাল সাড়ে ১০টায় শ্রীপুর পৌর এলাকার মাওনা চৌরাস্তায় লাইফ কেয়ার হাসপাতালের কার্যক্রম পরিদর্শন শেষে গাজীপুর জেলা সিভিল সার্জন ডা. মাহমুদা আক্তার হাসপাতালটির পুরো কার্যক্রম বন্ধ রাখার নিদের্শ দেন।

এসময় তিনি বলেন, লাইফ কেয়ার হাসপাতালের একজন সিস্টারের সঙ্গে কথা বলেছি। তিনি আসলে সিস্টার না, তার কোনো একাডেমিক পড়াশোনাও নাই। তিনি রোগী সংগ্রহ করেন, তার কোনো ট্রেনিং নাই। রোগীর ফাইলে প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টস পাওয়া যায়নি। প্রতিটি পেশেন্টেরই একই কেস। কোনো ওটি নোট লেখা নাই। শুধু কনসার্ন পেপারে আছে, যাতে কোনো ডাক্তারের স্বাক্ষর নাই। যারা লিখেছেন তারা সেখানে কি লিখেছেন, সেটাও তারা বলতে পারছেন না। মানে এটাকে আমি কি বলবো? এটা তো অদক্ষতার মধ্যেও পড়ে না! এই রিলেটেড লোকই না তারা।

হাসপাতালটির কার্যক্রম বন্ধ রাখা প্রসঙ্গে জেলা সিভিল সার্জন বলেন, আমি হাসপাতাল বন্ধ করে দিয়ে যাচ্ছি। এজন্য আমি এসেই ভর্তি রোগী কয়জন আছে, তার খোঁজ খবর নিয়েছি। শনিবার এবং রোববার অপারেশন হওয়া তিনজন রোগী ভর্তি আছেন। আজকে রাতে না হলেও আগামীকালের মধ্যে তাদের ছুটি দিতে পারবে।

লাইফ কেয়ার হাসপাতালটি ১০ বেডের হাসপাতাল জানিয়ে ডা. মাহমুদা আক্তার আরও বলেন, ১০ বেডের হাসপাতালে কাগজপত্রসহ সব কিছুই থাকবে। ১০ বেডের হাসপাতালে যতজন ডাক্তার লাগে, যতজন সিস্টার লাগে, সেই ডাক্তার এবং সিস্টারসহ সব কাগজপত্র আমাদের কাছে নিয়ে যাবে, তারপর আমরা আবার এসে দেখবো। দেখে সন্তুষ্ট হওয়া গেলে তারপর হাসপাতাল চালুর অনুমতি দেয়া হতে পারে। আপাতত তিনজন রোগীর চিকিৎসা চলমান, তাদের আজ রাতে অথবা আগামীকাল ছুটি হওয়ার কথা। তাদের ছুটি হয়ে গেলে নতুন করে আর কোনো চিকিৎসা কার্যক্রম চালাতে পারবে না।

এর আগে, গাজীপুরের শ্রীপুরে মাওনা চৌরাস্তার লাইফ কেয়ার হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ ও চিকিৎসকের অবহেলায় ইয়াছমিন আক্তার নামে এক প্রসূতির মৃত্যুর অভিযোগ ওঠে। এসময় কর্তৃপক্ষ ও চিকিৎসক হাসপাতাল ছেড়ে পালিয়ে গেলে উত্তেজিত স্বজনেরা হাসপাতালে ব্যাপক ভাঙচুর চালায়। পরে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

নয়াশতাব্দী/এনএস

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এ সম্পর্কিত আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

আমার এলাকার সংবাদ

x
Naya Shatabdi