ঢাকা, শুক্রবার, ২১ জুন ২০২৪, ৭ আষাঢ় ১৪৩১, ১৪ জিলহজ ১৪৪৫

আম বেশি খেলে হতে পারে যেসব ক্ষতি

প্রকাশনার সময়: ০৭ জুন ২০২৪, ১৫:২১

আম খুবই পুষ্টিকর ও সুস্বাদু একটি ফল। এ কারণেই আমকে বলা হয় ফলের রাজা। মধুমাস খ্যাত জ্যৈষ্ঠ আসার সঙ্গে সঙ্গে বাজারে পাকা আমও উঠতে শুরু করেছে। মিষ্টি আম অনেকেরই প্রিয়। তাই এ মৌসুমে গাছপাকা আম হাতে পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই কেউ আর লোভ সামলাতে পারেন না। আম শুধুমাত্র সুমিষ্ট একটি ফলই না, এতে অনেক পুষ্টি গুণাগুণও রয়েছে। তবে বেশি আম খাওয়া হলে কিছু পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া দেখা দিতে পারে।

তাই বেশি আম খেলে যেসব ক্ষতি হতে পারে আমাদের

ল্যাটেক্স এলার্জি : আপনার যদি ল্যাটেক্সে অ্যালার্জি থাকে তবে সতর্ক থাকুন। কারণ আমের প্রোটিন ল্যাটেক্সের মতোই। এটি চুলকানি এবং আমবাত বা অ্যানাফিল্যাক্সিসের কারণ হতে পারে। যার ফলে গলা ফুলে যেতে পারে এবং শ্বাস নিতে গুরুতর অসুবিধা হতে পারে।

রক্তে শর্করা বৃদ্ধি : ডায়াবেটিস রোগীদের দিনে একটির বেশি আম খাওয়া এড়িয়ে চলা উচিত, কারণ এটি ব্লাড সুগার বাড়াতে পারে। এই ফলের বেশিরভাগই কার্বোহাইড্রেট। এটা বিশ্বাস করা কঠিন, তবে এই সুমিষ্ট ফলের শর্করা পরিশোধিত চিনির মতোই কাজ করতে পারে।

ডায়রিয়া: আম বেশি খেলে ডায়রিয়া হতে পারে, কারণ এতে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকে। ফাইবার সমৃদ্ধ ফল অতিরিক্ত খাওয়া হলে তা ডায়রিয়ার কারণ হতে পারে। তাই সুষম অনুপাতে আম খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। খাবার খাওয়ার মিনিট পনেরো পরে আম খোসা ছাড়িয়ে টুকরো করে কেটে খেতে পারেন।

ওজন বৃদ্ধি: বেশি আম খাওয়া তা ওজন বাড়াতে সাহায্য করতে পারে। একটি আমে প্রায় ২০১ ক্যালোরি থাকে। তাই প্রতিদিন মাত্র দুই কাপ (৩৩০ গ্রাম) খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়।

কৃত্রিমভাবে পাকানো আম এড়িয়ে চলুন: অনেক আম কৃত্রিমভাবে পাকানো হয়। আপনি যদি অতিরিক্ত রসালো এবং মিষ্টি আম খেয়ে থাকেন তবে সাবধান হন, কারণ সেগুলো রাসায়নিকভাবে পাকানো হতে পারে। আম রাসায়নিকমুক্ত কিনা তা পরীক্ষা করার সর্বোত্তম উপায় হলো - এক বালতি পানিতে আম রাখুন। যদি আম ডুবে যায়, তবে স্বাভাবিকভাবেই পাকা। আর যদি ভাসতে থাকে তবে তা কৃত্রিম উপায়ে পাকানো।

নয়াশতাব্দী/এনএইচ

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এ সম্পর্কিত আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

আমার এলাকার সংবাদ