ঢাকা, সোমবার, ২৭ মে ২০২৪, ১৩ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১, ১৮ জিলকদ ১৪৪৫

দুশ্চিন্তা সড়কের খোঁড়াখুঁড়ি

প্রকাশনার সময়: ১৫ মে ২০২৪, ০৮:০২

পঞ্জিকা অনুসারে বর্ষা আসতে আর মাসখানেক বাকি। তারপরও গত কয়েকদিন ধরেই হুটহাট বৃষ্টি হচ্ছে। আর মধ্য জুন থেকে মধ্য অগাস্ট পর্যন্ত পুরোদমে থাকবে বৃষ্টি। এবারের বর্ষা রাজধানীর মিরপুর ও মোহাম্মাদপুরের বাসিন্দাদের দুশ্চিন্তার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। কারণ এ দুই এলাকার বিভিন্ন ওয়ার্ডে চলছে ড্রেনজ ব্যবস্থা ও সড়ক সংস্কারের কাজ। ফলে সড়কের ভাঙাচোরা ও খানাখন্দ স্বাভাবিকভাবেই বাড়াবে ভোগান্তি।

গতকাল মঙ্গলবার রাজধানীর মিরপুরের পল্লবীর সি-ব্লক, ডি-ব্লক, ই-ব্লক, কালশী ও মোহাম্মদপুরের তাজমহল রোড, নূরজাহান রোড, বিজলী মহল্লা, আজিজ মহল্লা, টিক্কাপাড়া, নবদয় হাউজিং, মোহাম্মদী হাউজিং সোসাইটি, কাঁটাসুর থেকে জাফরাবাদ হয়ে রায়ের বাজারের গদিগর পর্যন্ত দেখা গেছে, বেশিরভাগ সড়কই খোঁড়াখুঁড়ি শেষে পড়ে আছে এবড়োখেবড়ো অবস্থায়।

মোহাম্মদপুরের টিক্কাপাড়া এলাকায় কোনো গলি তিন মাস আগে, আবার কয়েকটিতে নতুন করে খোঁড়াখুঁড়ি শুরু হয়েছে। মোহাম্মদপুরের প্রায় প্রতিটি এলাকায় দেখা গেছে রাস্তাগুলো মাঝ বরাবর সরু করে কাটা হয়েছে। সড়কে একটু পরপর তৈরি হয়েছে গর্ত। পুরো রাস্তা বন্ধ করে বড় বড় পানির পাইপ বসানো হচ্ছে, রাস্তার এক পাশ কেটে বৈদ্যুতিক লাইন ও ফুটপাতের নিচের নালা সংস্কারের কাজ চলছে। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের অঞ্চল-৫ এর পাঁচটি ওয়ার্ডের (২৯, ৩০, ৩১, ৩৩ ও ৩৪) বিশাল জনগোষ্ঠীকে প্রতিদিনই চলাচল করতে হচ্ছে এসব রাস্তা দিয়ে। কিন্তু বেহাল রাস্তাগুলো বর্ষার আগে সংস্কার করা না হলে বড় ধরনের দুর্ভোগে পড়ার আশঙ্কা করছেন বাসিন্দারা।

মিরপুরের পল্লবীর ডি-ব্লকের ২৯ ও ২৭ নম্বার রোড বেশ কিছুদিন ধরে কাটাকাটি চলছে। এলাকাবাসী তাদের বাড়ি-ঘর থেকে বের হতেও ভোগান্তিতে পড়ছে। যাদের প্রাইভেট কার ও মোটরসাইকেল আছে তাদের দুর্ভোগের শেষ নেই। তাছাড়া পুরো এলাকার মোড়ে মোড়ে রাস্তা কেটে পানির লাইন বসানো হচ্ছে প্রায় ছয় মাস ধরে। কবে নাগাদ এগুলো ঠিক করা হবে কেউ বলতে পারছে না। ডি ব্লকের নওয়ায়েদ আকবর বলেন, চার মাস ধরে ড্রেনের কাজ করছে, একদিন কাজ করলে সাত দিন বন্ধ থাকে। কবে কাজ শেষ হবে কেউ বলতে পারে না। একই এলাকার ঈদগা মাঠের বাসিন্দা রেমন্ড বলেন, ‘এই যন্ত্রণার শেষ কোথায় কেউ বলতে পারছে না। এমন অবস্থা হয়েছে যে, ঘর থেকে বের হওয়ায় দায় হয়ে গেছে। সামনে কুরবানির ঈদ গরু ছাগল রাখা এবং কুরবানি দেয়া নিয়ে দুশ্চিন্তায় আছি। আর বৃষ্টির দিনে তো এ রাস্তায় চলাচলই করা যাবে না’। সি-ব্লকে কথা হয় অটো রিকশার ড্রাইভার সেলিমের সঙ্গে। তিনি বলেন, মুসলিম বাজার থেকে পল্লবী আসতে এক কিলোমিটার রাস্তায় অন্তত ৫০ জায়গায় কাটা। ধাক্কা খেতে খেতে রিকশা ও পেসেঞ্জারের জান শেষ। আমাদের কষ্টের কথা বাদই দিলাম। ৬-৭ মাস ধরে এ অবস্থা চলছে। তিনি আরও বলেন, বছর খানেক আগে এলাকার রাস্তাগুলো ঠিক করছিল। ভাবছিল আরামে রিকশা চালনো যাবে। কিন্তু ৬ মাস যেতে না যেতেই খুড়াখুঁড়ি শুরু করল। এ বিষয়ে কথা বলার জন্য ২ নম্বর ওয়ার্ড কমিশনার সাজ্জাদ হোসেনের মোবাইলে একাধিক বার ফোন দিয়েও পাওয়া যায়নি। এদিকে মোহাম্মদপুরের নূরজাহান রোডে পয়ঃনালা নির্মাণের কাজ শুরু প্রায় চার মাস আগে। মঙ্গলবার পর্যন্ত দেখা গেছে এ সড়কের সব কাজ শেষ হয়নি। সড়কের কিছুটা অংশে প্রাথমিক কার্পেটিং করা হলেও বাকি অংশ ভাঙাচোরা। এ সড়কের আশপাশের বিভিন্ন অলিগলিও কাটা হয়েছে। তাছাড়া তাজমহল রোডের একপাশের ফুটপাতের কাজ শেষে শুরু করা হয়েছে অন্যপাশের নালা সংস্কার। নূরজাহান রোডের শুরুর অংশ থেকে শিয়া মসজিদ পর্যন্ত নালার ওপর ঢালাইয়ের কাজ চলছে। রিং রোডের টিক্কাপাড়ার ‘এফ’ ব্লকে বন্ধ ভাঙা একটি সড়কে পড়ে ছিল বিশাল একটি রোলার। এ সড়কের অন্য অংশে পুরোটা জুড়ে রাখা হয়েছে ইট, বালু, সিমেন্টের বড় বড় পাইপ। সেখানে ফুটপাতে টাইলস বসানোর কাজ করছিলেন হামিদ মিয়া। তিনি বলেন, ‘রাস্তা বন্ধ আছে চার মাসের মতো হইব। বেশি কথা কওন যাইব না।’

এ এলাকার বাসিন্দা ওজায়ের হোসেন বলেন, ‘বড় বড় পানির পাইপ, বৈদ্যুতিক লাইন, ড্রেন, ফুটপাতের কাজ এক সঙ্গে হয়েছে। এখন সুড়কি ফেলেছে। কিছুদিন আগে তো বাসা থেকে বের হওয়ার অবস্থাও ছিল না।’

টিক্কাপাড়ার আরও দুটি সড়কে নতুন করে কাটাকাটি করতে দেখা গেছে। অন্য একটি সড়ক এক সপ্তাহ আগে পুরোটা কেটে রাখা হয়েছে বলে জানান কয়েকজন বাসিন্দা। বাসা-বাড়ি ও দোকান থেকে বের হতে কাঠের তক্তা ব্যবহার করছেন মানুষ।

আজিজ মহল্লার একটি গলির এক পাশ লম্বা করে কেটে রাখা হয়েছে প্রায় দুই মাস। ফলে সরু রাস্তাটি হয়েছে আরও সরু। এ গলিটি অনেকেই আদাবর, শেখেরটেক, রিং রোডে যাওয়ার রাস্তা হিসেবে ব্যবহার করেন। ফলে ভাঙা সরু রাস্তায় যানজট লেগেই থাকে। বিজলী মহল্লার দুটি সড়কে কাজ চলতে দেখা গেছে। একটি সড়কে সুড়কি ফেলছিলেন শ্রমিক বাতেন শেখ। কাজ করতে করতে বললেন, ‘কাজ মাঝে বন্ধ আছিল। আবার চালু হইছে। এহন এই ভাঙা রাস্তা দিয়াই অনেকে গাড়ি লইয়া যায়।’

সড়কটিতে মোটরসাইকেল ওয়াশে আসা বাপ্পি আহমেদ বলেন, ‘ভাঙা রাস্তা দিয়ে বাইক চালালে পিঠ, কাঁধ, মাথা ব্যথা হয়। এছাড়া বাইকের সাসপেনশন বা শক এবজরবারও দ্রুত নষ্ট হয়। বারবার বাইক সার্ভিসিং করাতে হয়।’

নবদয় হাউজিংয়ের ‘বি’ ব্লকের চারটি গলিতে খোঁড়াখুঁড়ি ও কাটাকাটি শেষে সুড়কি ফেলে রাখা হয়েছে। একটি রাস্তার ফুটপাতে খোঁড়াখুঁড়ি চলছে। রাস্তার মাঝ বরাবর বড় বড় স্লাবের উঁচু অংশে আটকে যাচ্ছে রিকশা, গাড়ির চাকা।

মোহাম্মদী হাউজিং সোসাইটির ৫, ৭ ও ১১ নম্বর সড়ক পড়ে আছে ভাঙাচোরা। ৭ নম্বর সড়কে সুড়কি ফেলা হলেও ১১ নম্বর সড়কে এবড়োখেবড়ো করে মাটি কেটে রাখা হয়েছে। প্রায় আট মাস ভাঙা পড়ে আছে ব্যস্ততম কাঁটাসুরের দীর্ঘ সড়কটি। কাটাকাটির পর সুড়কি দিয়ে প্রাথমিক কার্পেটিং করা হলেও পুরো রাস্তা বিভিন্ন স্থানে আবার আড়াআড়িভাবে কাটা হয়েছে। ফুটপাতের পাশে কয়েক ফুট রাস্তাও কাটা। ফলে পাশাপাশি দুটি গাড়ি চলার জায়গা নেই।

কাঁটাসুরের শুরু থেকে রায়েরবাজার পর্যন্ত পুরো রাস্তার একই অবস্থা। এর মধ্যে কাদেরাবাদের ৩-৪টি গলি কাটার পর বন্ধ আছে প্রায় ৬ মাস। কয়েকটি গলিতে চলছে মাঝ বরাবর ম্যানহোল ও স্ল্যাব ঢালাইয়ের কাজ। নতুন করে কাটা হয়েছে একটি গলি। নবদয় হাউজিংয়ের ‘বি’ ব্লকের বাসিন্দা ফারজানা বিথি বাচ্চাকে নিয়ে ভাঙা সড়ক দিয়েই রিকশায় প্রতিদিন স্কুলে যাওয়া-আসা করেন। তিনি বলেন, ‘বৃষ্টির আগে সড়ক ঠিক না হলে কোনোভাবেই চলাচল করা যাবে না। একটু বৃষ্টি হলেই ইটের সুড়কি আর বালু ধুয়ে যাবে। তখন গর্ত আর ভাঙার মধ্যে কীভাবে চলব?’ ২৯ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মোহাম্মদ সলিমউল্লাহ বাসিন্দাদের ভোগান্তির বিষয়টি স্বীকার করে বলেন, ‘আমার এলাকায় ওয়াসার কাজ, বিদ্যুতের কাজ হচ্ছে। এখনো কাজ শেষ না হওয়ায় বাসিন্দাদের ভোগান্তি বেড়েছে। তাই অনেকবার তাগিদও দিয়েছি। কিন্তু বড় ধরনের খোঁড়াখুঁড়ির কাজ তো আমার এলাকায় তেমন নেই। তবে রাস্তার মাঝে আড়াআড়িভাবে অনেক জায়গায়তেই কাটা হয়েছে। এ ভাঙা এখন গর্তে পরিণত হয়েছে। এ ধরনের ভাঙা অনেক বেশি, যা সব বয়সি মানুষের যাতায়াতেই কষ্ট তৈরি করছে।’ বড় ধরনের খোঁড়াখুঁড়ি হচ্ছে না বলা হলেও ওয়ার্ডের টিক্কাপাড়া এলাকায় মঙ্গলবার তিনটি সড়কে নতুন করে খোঁড়াখুঁড়ি করতে দেখা গেছে। বিষয়টি জানানো হলে কাউন্সিলর সলিমউল্লাহ বলেন, ‘না না বড় বা নতুন কোনো খোঁড়াখুঁড়ি আমার এলাকায় হচ্ছে না।’ বর্ষা শুরুর আগে সব কাজ শেষ হওয়ায় সুযোগ আছে কিনা এবং না হলে ভোগান্তি কমাতে কী ধরনের উদ্যোগ নেয়া হবে জানতে চাইলে তিনি বলেন, “বড় তেমন কাজও বাকি নেই আমার এলাকায়। আশা করি বর্ষার আগেই কাজ শেষ হবে। আমি সিটি করপোরেশনের সঙ্গেও কথা বলেছি এ বিষয়ে।” সড়কের বেহাল অবস্থা নিয়ে ৩০, ৩১, ৩৩ ও ৩৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলরদের একাধিকবার ফোন করা হলেও তাদের কাউকেই পাওয়া যায়নি। খোঁড়াখুঁড়ি ও রাস্তার উন্নয়নকাজের দীর্ঘসূত্রতা নিয়ে কথা হয় ডিএনসিসি অঞ্চল-৫ এর নির্বাহী প্রকৌশলী নূরুল আলমের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘আমাদের কাজের সেশন মূলত জুন থেকে জুলাই। এ এক বছরের মধ্যেই আমরা সড়ক মেরামত ও অন্য সব ধরনের কাজ শেষ করি। তবে বৃষ্টি-বাদলের সমস্যা ও ঠিকাদাররা দেরি করলে অনেক সময়ে কাজ শেষ হয় না। তবে আমাদের মোটামুটি সব ধরনের কাজই শেষ। সামনের জুনের মধ্যে টপ ফিনিশিং বা প্রথম লেয়ারের কাজ শেষ হবে। তাজমহল রোড, জাকির হোসেন রোড, নূরজাহান রোডে প্রথম লেয়ার দেয়া হয়েছে।’ যেসব সড়কে নতুন করে খোঁড়াখুঁড়ি চলছে তা নিয়ে এ প্রকৌশলী বলেন, ‘টিক্কাপাড়াসহ যেসব এলাকায় নতুন করে খোঁড়াখুঁড়ি চলছে তা বেশিরভাগ ওয়াসা ও ডিপিডিসির কাজ। তাদের কাজে পুলিশের অবজারভেশন থাকে, হাউজ কানেকশন, প্রেসার টেস্ট ইত্যাদি কারণে সময় বেড়ে যায়। সড়ক মেরামতের দায়িত্ব আমাদের হলেও কাজ শেষ না হওয়ায় লেয়ারিং দেয়া সম্ভব হচ্ছে না। অনেক সড়কে আবার প্রথম লেয়ারিং দেয়ার পর নতুনভাবে সরু করে কাটা হয়েছে। ফলে সড়ক ভাঙাই থেকে যাচ্ছে।’

নয়াশতাব্দী/ডিএ

নয়া শতাব্দী ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন

মন্তব্য করুন

এ সম্পর্কিত আরো খবর
  • সর্বশেষ
  • জনপ্রিয়

আমার এলাকার সংবাদ